বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) : চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে পুকুরের পানিতে বিদ্যুৎস্পৃ’ষ্ট হয়ে হাফেজ মো. এনামুল হক (৪২)




নামের একজনের মৃ’ত্যু হয়েছে। বুধবার (২৯ জুলাই) মধ্যরাতে উপজেলার আহলা কড়লডেঙ্গা ইউনিয়নে সাদারপাড়া

এলাকার একটি মসজিদের পুকুরে ওজু করতে নামলে এ ঘটনা ঘটে। নিহত এনামুল হক ওই এলাকার সাদারপাড়া




পুরাতন জামে মসজিদের ইমাম হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। তিনি চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নের অলি

সিকদার পাড়ার মৃ’ত সোলাইমান সওদাগরের ছেলে।বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল করিম




বলেন, মসজিদের পুকুরের পানি নিষ্কাশনের জন্য বসানো বৈদ্যুতিক মোটরের কারণে পুকুরের পানি বিদ্যুতায়িত হয়ে

গিয়েছিল। ওই পুকুরে বুধবার রাতে ওজু করতে নামলে এনামুল বিদ্যুৎস্পৃ’ষ্ট হন বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।




নিহ’তের লা’শ উ’দ্ধার করে ময়নাতদ’ন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ম’র্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

আরো পড়ুন,দেশ স্বাধীন হওয়ার প্রায় ৫০ বছর পর খেতাবপ্রা’প্ত মুক্তিযো’দ্ধা বীর বিক্রম আব্দুল খালেক মা’রা গেছেন। বুধবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃ’ত্যু




হয়। গত সোমবার তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তাঁর মৃ’তদে’হ আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে রাষ্ট্রীয়
মর’্যাদায় বাড়ির আঙিনায় দা’ফন করার কথা। বীর বিক্রম আব্দুল খালেকের শরীরে কোভিডের উপসর্গ থাকায় তাঁকে

হাসপাতালের করো’না ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছিল। পরে পরীক্ষায় তাঁর করো’না নেগেটিভ আসে। তার পরও তাঁকে করো’না ওয়ার্ডে রাখা হয়েছিল। মুক্তিযো’দ্ধা আব্দুল খালেকের বাড়ি রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজে’লার চাপাল গ্রামে।




তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। গত ৬ জুন নতুন প্রকাশিত খেতাবপ্রা’প্ত মুক্তিযো’দ্ধাদের গেজেটে তাঁর নাম উঠেছে। গেজেট বিভ্রাটের কারণে তাঁর ‘বীর বিক্রম’ স্বীকৃতি পেতে এই বিলম্ব হয়েছে। হাসপাতালে ভর্তির সময় আব্দুল খালেকের

স’ঙ্গে ছিলেন তাঁর বড় ছেলে মাসুম আক্তার জামান। তিনি জানান, তিন-চার দিন থেকে তাঁর বাবার জ্বর ও কাশির সমস্যা দেখা দেয়। গত রোববার রাতে তিনি মাথার যন্ত্রণায় খুব কাতরাচ্ছিলেন। সোমবার সকাল ১০টার দিকে তাঁকে




হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু জরুরি বিভাগ থেকে তাঁকে করো’না রোগীদের জন্য নির্ধারিত মিশন

হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছিল। করো’না পরীক্ষার আগেই তাঁরা সেখানে যেতে রাজি হননি। অবশেষ বেলা ১টার দিকে তাঁর বাবাকে হাসপাতালে ভর্তি নেওয়া হয়। এখানেও তাঁর বাবাকে হাসপাতালের ২৯ নম্বর করো’না ওয়ার্ডে নেওয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here