ভারতের উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউয়ে এক আজব ঘ’টনা সামনে এলো। করোনা আক্রা’ন্ত হওয়ার একের পর এক




ঘ’টনা চলছেই। এরকম ভাবেই করোনা আক্রা’ন্ত হওয়ার খবরের সময়েই ভোলবদল স্বামীর। গর্ভবর্তী স্ত্রী করোনা আক্রা’ন্ত

– এই রিপোর্ট আসার পরই নিজের স্ত্রীকে চিনতে অস্বী’কার করেন স্বামী । এই ঘ’টনা দেখে অবা’ক হয়ে যান




হাসপাতালকর্মী। বলা হচ্ছে মহিলা গর্ভবতী ছিলেন। কিন্তু সঠিক সময়ে সার্জারি করা যায়নি। ফলে মায়ের পেটেই মা’রা

যায় গর্ভস্থ সন্তান। স্ত্রীর সঙ্গে এই ব্যবহার দেখে সকলে চ’মকে যায়। লখনউয়ের ইন্দিরানগরে ২৪ বছরের হিনার বিয়ে




হয়েছিল ফেব্রুয়ারি ২০১৯ সালে। বিয়ে হয়েছিল চাঁন্দন গাঁওয়ের বাসিন্দা ফকরুলের সঙ্গে। ৪ জুলাই সন্তান ডেলিভারির

তারিখ নির্ধারিত হয়েছিল।তাই নিয়ম মেনেই তাকে লোহিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এরমধ্যে চিকিত্‍সক হিনার




স্যাম্পেল কালেক্ট করা হয়। সেই স্যাম্পেলে করোনা রিপোর্ট পজি’টিভ আসে। এরপর হাসপাতাল কর্মীরা ফকরুলকে সেই

খবর জানায়। তারপরই সে স্ত্রীকে সাহায্য করার ব’দলে হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়ে যায়। গর্ভবতীকে দেখাশুনো করতে




তার বোন হাসপাতালে পৌঁছায়। হাসপাতালের কর্মীরা ফকরুলকে ফোন করলে সে ফোন ধ’রতে অ’স্বী’কার করে।

এরপর মহিলার বাবা ফকরুলকে নিজের নম্বর থেকে ফোন করে। সেই ফোনে সে জানিয়ে দেয় করোনা আক্রা’ন্ত স্ত্রীর




সঙ্গে কোনও সম্পর্ক রাখবে না। এদিকে সার্জারিতে দেরির কারণে বাচ্চা মায়ের গর্ভেই মা’রা যায়। এরপরেও মহিলা

করোনার বি’রু’দ্ধে যু’দ্ধে জয়ী হন। এরজন্য ৮ দিন তাঁকে হাসপাতালে থাকতে হয়েছিল। এবার এই মহিলা স্বামীর বিরুদ্ধে
কোর্টে যাবেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here