ভিডিও ভাইরাল হয়ে গেছে চীনের সোশ্যাল মিডিয়ায় উইবো-তে। ভিডিওটি সামনে আসার পর হ্যাশট্যাগ ‘ব্রাইড এক্সপোজ অ্যাট ওয়েডিং’ ট্রেন্ডিং হয়ে ওঠে। কনের আত্মীয়রা ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সরিয়ে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন
চীনের সোশ্যাল মিডিয়া উইবো-তে সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।




বিয়ের মঞ্চে উঠছেন বর-কনে। পেছনে বাজছে গান। এ সময় মঞ্চের ঠিক পেছনে একটি ভিডিও চলতে শুরু করে। ঘোষণা হয়, বর-কনের প্রেমের কাহিনী তুলে ধ’রা হচ্ছে। কিন্তু যা ফুটে উঠল পর্দায়, তাতে বিয়ে ভাঙার জোগাড়। কনের সঙ্গে বরের ভগ্নিপতির যৌ’নতার একটি ভিডিও




চলতে আরম্ভ করে। আর সঙ্গে সঙ্গে মঞ্চে দাঁড়িয়ে ঝগড়া শুরু হয় বর-কনের।বর কনেকে ধাক্কা দেন আর পাল্টা কনে তার দিকে হাতের ফুলের তোড়া ছুড়ে দেন। বর কনেকে বলেন, তুমি কি ভেবেছিলে আমি এ স’ম্পর্কে আগে জানতাম না?




পুরুষ যৌ’নকর্মী হিসেবে দীর্ঘদিন থেকে কাজ করছেন অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা রায়ান জেমস। নারীদের সঙ্গে মেলামেশায় দীর্ঘদিনের অ’ভিজ্ঞতা তার।বিবাহিত, অবিবাহিত, কুমা’রিসহ নানা বয়সের নারী তাকে ভাড়া করেন। আর সময় দেওয়ার বিনিময়ে ৪০০ ডলার থেকে শুরু করে ৬০০০ ডলার পর্যন্ত পারিশ্রমিক নেন রায়ান।তার মতে, নারীরা কেবল




যৌ’নমিলকেই প্রাধান্য দেন না, তাদের চাহিদা অন্যরকম।সম্প্রতি ইংল্যান্ডের ডেইলি মেইলের অস্ট্রেলিয়া ভার্সনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি নারীর বিভিন্ন চাওয়া পাওয়ার কথা বলেন।তিনি জানান, বিছানায় নারী শুধু যৌ’নতা-ই চান না। একে অ’পরের কথা বলা, এখানে ওখানে ঘুরতে যাওয়াও নারীর কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।তিনি জানান, তাকে শুধু নারীর




সঙ্গে যৌ’নমিলন করার জন্যই ভাড়া করা হয় না। একসঙ্গে ঘুরে বেড়ানোসহ আরো অন্যান্য কাজের তাকে ফি প্রদান করা হয়। তিনি তার পেশাদারী কাজের জন্য ৪০০ ডলার থেকে শুরু করে ৬০০০ ডলার পর্যন্ত ফি নেন। তার মধ্যেই যৌ’নমিলন ও হোটেলে অবস্থান সংযু্ক্ত থাকে।রায়ন বলেন, নারীদের যৌ’ন চাহিদা অন্যরকম। তারা আমাকে ভাড়া করেন




কেবল শারিরীক চাহিদা মেটানোর জন্য নয়। বেশিরভাগ নারী আমাকে সঙ্গে নিয়ে হোটেলে ঘোরা ও অন্যান্য কাজ কর্মও করেন। পুরুষরা বেশির ভাগ সময় যৌ’নমিলনকেই প্রাধান্য দেয়। কিন্তু সেটাই সব কিছু নয়। অনেক নারী আছেন যারা যৌ’নতা নির্ভর খু’নসুটি করতেও ভালোবাসেন। তাই পুরুষদের উচিত শুধু যৌ’নমিলনের উপর গুরুত্ব না দিয়ে,




অন্যান্য বিষয়ের উপরেও গুরুত্ব দেওয়া।রায়ান আরো বলেন, অনেক নারী আছেন যারা বারে গিয়ে যে কোনো পুরুষ যৌ’নকর্মীকে নিয়ে আনন্দ ফূর্তি করেন, কিন্তু যৌ’নমিলন করেননা।তিনি বলেন, বেশির ভাগ নারী তার যৌ’নকর্মীর সঙ্গে কী’’’ করবেন তা আগে থেকে ঠিক করেন না। ভাড়া করার পর যা করতে ভাল লাগে, তাই করতে শুরু করেন।




আবার অনেক নারী আছেন, যাদের পছন্দের বিষয় তারা জানান। তারা মিলিত হয়ে সেভাবে কাজ করতে বলেন। আবার কিছু নারী আছেন, যারা শুধু যৌ’নমিলনের জন্যই টাকা পরিশোধ করেন। তারা নিজেদের শা*রীরিক চাহিদা মিটিয়েই চলে যান। তাদের নিজের কোনো পছন্দের কথা বলেন না। আমি যা করি তারা তাতেই তারা খুশি থাকেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here